রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ১২:৪০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
লাখাই-হবিগঞ্জ সড়কের ব্রিজের নীচ থেকে বৃদ্ধের ভাসমান মরদেহ উদ্ধার নবীগঞ্জে ৩টি ওয়ারেন্টে মামলার ৬ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী এস এম আলী গ্রেফতার চুনারুঘাটে ডিবি’র পৃথক অভিযানে মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ॥ ৪৫ কেজি গাঁজাসহ প্রাইভেটকার ও সিএনজি গাড়ী আটক হবিগঞ্জের আলোচিত সানজানা শিরিনের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। সুতাং ব্রীজে পিকআপ ও সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষ ॥ মহিলা নিহত এমপি ব্যারিস্টার সুমনকে হত্যার পরিকল্পনার ঘটনায় চুনারুঘাটে সংবাদ সম্মেলন ও প্রতিবাদ সভা নবীগঞ্জে লড়ি-অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১ বানিয়াচংয়ে সর্দার নির্বাচন নিয়ে সংঘর্ষ ॥ আহত ৩০ আজমিরীগঞ্জে পুকুরে ডুবে দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু চিনি বোঝাই ট্রাক চাপায় শায়েস্তাগঞ্জে পুলিশ সদস্য রবিউল নিহত ॥ আটক ৩

সদর উপজেলার লস্করপুর ইউনিয়নের যমুনাবাদে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৯
  • ৩৩৭ বার পঠিত

হবিগঞ্জ সংবাদদাতাঃ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লস্করপুর ইউনিয়নের যমুনাবাদ গ্রামে নাজমা আক্তার (২০) নামে এক গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। নাজমার পিতার পরিবারের অভিযোগ তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। সে হবিগঞ্জ শহরের পূর্ব মাহমুদাবাদ এলাকার দুবাই প্রবাসী শফিক মিয়ার কন্যা। গতকাল শুক্রবার বিকালে সদর থানার ওসি (তদন্ত) জিয়াউর রহমান ও এসআই এসএম আতাউর রহমান ঘটনাস্থলে পৌছে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে মর্গে প্রেরণ করেন।
নাজমার চাচা জানান, গত ২ বছর আগে নাজমাকে যমুনাবাদ গ্রামের কালা মিয়ার পুত্র সিএনজি চালক শরীফ মিয়া (৩০) এর সাথে বিয়ে দেয়া হয়। বিয়ের পর জানতে পারে শরীফ মাদকসেবী। প্রায়ই নাজমার উপর নির্যাতন নিপীড়ন চালাত। বর্তমানে নাজমা ৬ মাসের অন্তসত্ত্বা হয়ে পড়লে কৌশলে সদর হাসপাতালের এক নার্সের মাধ্যমে গর্ভপাত ঘটায় শরীফ। নাজমার সন্তান নষ্ট করায় মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়ে এবং শারিরিক অবস্থার অবনতি হলে স্বামীর সাথে অভিমান করে পিত্রালয়ে অবস্থান করে আসছিল।
এদিকে, নাজমার স্বামী শরীফ স্থানীয় মুরব্বীদের মাধ্যমে তাকে ফিরিয়ে নিতে চেষ্টা চালায়। অবশেষে নাজমার মা নাজমাকে স্বামীর বাড়িতে দিতে রাজি হন। গত বৃহস্পতিবার বিকালে যমুনাবাদের দু’জন মুরুব্বীর মাধ্যমে শরীফ শ্বশুর বাড়ী থেকে নাজমাকে বাড়ি নিয়ে যায়। বাড়ি নিয়ে যাওয়ার পরই নাজমার উপর নির্যাতন চালায়। বিষয়টি নাজমা তার পিত্রালয়ে জানায়। রাতে তাকে মারধর করে ঘর থেকে বের করে দেয়।
শুক্রবার সকালে শরীফের বাড়ি থেকে নাজমার পিত্রালয়ে খবর পাঠানো হয়, নাজমা আত্মহত্যা করেছে। পুলিশ সাথে নিয়ে তারা দেখতে পান নাজমার মৃত দেহ মাটিতে পড়ে রয়েছে। তাছাড়া স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন পলাতক। এতে তাদের সন্দেহ আরও ঘনীভুত হয়।
নাজমা’র মা জায়েদা বেগম জানান, শরীফ ও তার পরিবারের লোকজন নাজমাকে বেদড়ক মারপিট করে হত্যা করেছে। এ কারণে ওই মুরুব্বীরা এবং শরীফ পূর্ব পরিকল্পিতভাবে হত্যা করার জন্য নাজমাকে কৌশলে নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে আমি আইনের আশ্রয় নিব।
এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি (তদন্ত) জিয়াউর রহমান জানান, ময়না তদন্ত রিপোর্ট পাবার পর মৃত্যুর আসল কারন জানা যাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2019 Prothomsheba
Theme Developed BY ThemesBazar.Com