মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:৫৭ পূর্বাহ্ন

হবিগঞ্জের ইতিহাসে আজ কলঙ্কের ২৭ জানুয়ারি

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২৭ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ৮ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টারঃ আজ কলঙ্কের ২৭ জানুয়ারী। সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যার ১৯ বছর পূর্ণ হলো। দফায় দফায় তদন্তের বেড়াজালে আটকে থাকা এ হত্যাকান্ডের বিচার এখনও আলোর মুখ দেখছেনা। সাক্ষি না আসা, আসামীদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা থাকায় ঠিকমতো আদালতে হাজির না হতে পারাসহ বিভিন্ন জটিলতায় বিচার কার্যক্রম দীর্ঘসূত্রিতায় পড়েছে। এ অবস্থায় বিচার নিয়ে হতাশার পাশাপাশি ক্ষোভ বাড়ছে নিহতদের পরিবার ও স্থানীয়দের মনে। ২০০৫ সালের এই দিনে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বৈদ্যের বাজারে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় যোগ দেন সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া। বৈদ্যের বাজার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে সভা শেষে ফেরার সময় দুর্বৃত্তদের গ্রেনেড হামলায় শাহ এএমএস কিবরিয়া ও তার ভাতিজা শাহ মঞ্জুর হুদাসহ মোট ৫ জন নিহত হন। এতে আহত হন জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি ও অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহির এমপিসহ প্রায় ৫০ জন। এ ঘটনায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে পৃথক দু’টি মামলা দায়ের করা হয়। কয়েক দফা তদন্ত শেষে ৩৫ জনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। লোমহর্ষক এ হত্যাকান্ডের বিচার শুরু হয়েছে প্রায় ৮ বছর পূর্বে। কিন্তু নানা কারণে বিচারকার্যে দীর্ঘসূত্রিতার সৃষ্টি হয়েছে। এ নিয়ে দিন দিন ক্ষোভ বাড়ছে নিহতদের স্বজনদের মাঝে। গ্রেনেড হামলায় নিহত আবুল হোসেন, সিদ্দিক আলী ও আব্দুর রহিমের স্ত্রী সন্তানরা বলেন, ১৯ বছর ধরে আমরা বিচারের অপেক্ষায়। তবে আদৌ বিচার হবে কি না এ নিয়ে তারা হতাশা ব্যক্ত করেন। তারা বলেন, আমাদের খবর কেউ রাখে না। ২৭ জানুয়ারী আসলে সাংবাদিকরা আসে আমাদের দুঃখের কথা জানার জন্য। পরে আর কেউ খোজখবর নেয় না।
সিলেট দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালে মামলার সরকার পক্ষের আইনজীবী পিপি এডঃ সারোয়ার আহমেদ আবদাল বলেন, মামলায় ১৭১ জন সাক্ষির মাঝে ৫০ জন স্বাক্ষ্য দিয়েছেন। বিচারের ক্ষেত্রে আদালতের কোন ত্রুটি নেই। তিনি বলেন, স্বাক্ষী নিয়মিত আসলে দেড় বছরের মধ্যে মামলা নিষ্পত্তি হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। নিহত শাহ এএমএস কিবরিয়ার ছেলে ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, আজ আমার বাবার ১৯তম মৃত্যু বার্ষিকী। এত দিনে এ ঘটনার সুষ্টু তদন্ত হয়নি, সুষ্টু বিচার হয়নি। তিনি বলেন, অনেককে এ মামলায় জড়ানো হয়েছে অন্যায়ভাবে। তিনি বলেন, এ হত্যাকান্ড কারা ঘটিয়েছে, কি করে ঘটেছে হবিগঞ্জের মানুষ তা জানে। এ সরকারের আমলে বিচার পাবো এ আশা আমরা করি না। এ ধরনের অনেক ঘটনার বিচার মানুষ পাচ্ছে না। তবে একদিন খুনিদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।
গ্রেনেড হামলায় আহত এডভোকেট মোঃ আবু জাহির এমপি বলেন, সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া আপাদমস্তক একজন ভালো মানুষ ছিলেন। সম্মান রেখে সকলের সাথে সুন্দরভাবে কথা বলতেন। ২০০৫ সারের ২৭ জানুয়ারী কিবরিয়াসহ ৫ জন নিহত হন। আমি নিজেও ক্ষতবিক্ষত হয়েছি। অলোকিক ভাবে আল্লাহ আমাকে বাচিয়ে রাখেন। তিনি বলেন, ঘটনার পর আহতদের চিকিৎসায় আওয়ামীলীগ ভূমিকা রেখেছে। পরবর্তীতে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার পর আমি প্রধানমন্ত্রীর নিকট থেকে নিহতদের পরিবারকে ও আহতদের আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। তিনি বলেন, ২৭ জানুয়ারী আসলেই আমার পরিবারের মাঝে উৎকণ্ঠা ও কষ্টের কথা স্মরণ হয়। আমার পরিবার সহ হবিগঞ্জবাসী অপেক্ষা করছে কবে এর বিচার হবে। তবে খুব দ্রুততম সময়ের মধ্যে বিচার কার্য সম্পন্ন হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, দেশবাসী জানবে প্রকৃত খুনিদের বিচার হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2019 Prothomsheba
Theme Developed BY ThemesBazar.Com