সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৩৯ অপরাহ্ন

বিমান ছিনতাই চেষ্টা আন্তর্জাতিক পরিসরে কী বার্তা দেবে?

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ৩২৪ বার পঠিত

অনলাইন ডেস্কঃ বিমান ছিনতাই চেষ্টা আন্তর্জাতিক পরিসরে কী বার্তা দেবে?
রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উড়োজাহাজটি ছিনতাই চেষ্টার অবসান হয়। ছবি: দেশ রূপান্তর

ঢাকা থেকে দুবাইগামী বাংলাদেশ বিমানের ‘ময়ূরপঙ্খী’ উড়োজাহাজ রোববার ছিনতাইকারীর কবলে পড়েছিল। প্রায় দুই ঘণ্টার টানটান উত্তেজনার পর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উড়োজাহাজটি ছিনতাই চেষ্টার অবসান হয়।

কমান্ডো অভিযানে উড়োজাহাজে থাকা অস্ত্রধারী তরুণ নিহত হন। টিকিটে তার নাম মো. মাজিদুল বলে জানা গেছে। তবে তার সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি।

এর আগে উড়োজাহাজটি থেকে যাত্রী-ক্রুসহ সবাইকে নিরাপদে সরিয়ে নেওয়া হয়। এ সময় বিমানবন্দর এলাকায় ভিড় করে অসংখ্য মানুষ। এ ঘটনায় সাতটি অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট বাতিল করা হয়। প্রায় সাড়ে চার ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর রাত ১০টার দিকে বিমানবন্দরের স্বাভাবিক কার্যক্রম শুরু হয়।

তবে বিবিসি বাংলার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিমান ছিনতাই চেষ্টার ঘটনায় ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিরাপত্তা নিয়ে নতুন করে প্রশ্ন উঠেছে। এটি আন্তর্জাতিক পরিসরে নেতিবাচক বার্তা দেবে।

বিমান চলাচল বিশ্লেষক কাজী ওয়াহিদুল হক মনে করেন, এই ঘটনা বহির্বিশ্বে একটা নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। এটি বিশ্বে একটি খারাপ বার্তা দেবে।

তিনি এর আগে ঢাকা থেকে যুক্তরাজ্যের সরাসরি মালবাহী বিমান বা কার্গো চলাচল বন্ধ রাখার বিষয়কে উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের মার্চ মাসে যুক্তরাজ্য নিরাপত্তার দুর্বলতার অজুহাতে ঢাকা থেকে সরাসরি কার্গো বিমান চলাচল সাময়িকভাবে বন্ধ করেছিল। এরপর দুই বছর নিরাপত্তা ব্যবস্থায় পরিবর্তন করা হলে তারা ওই নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছিল।

ওয়াহিদুল হক বলেন, এই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া মানে এই নয় যে, তারা সারাজীবনের জন্য সন্তুষ্ট থাকবে। এটার আরও আধুনিক যে সব ব্যবস্থা নেওয়ার প্রয়োজন ছিল বা ডিজিটাল ব্যবস্থা আরও উন্নত করা উচিত ছিল। এসব বিষয়েও এখন প্রশ্ন এসে যেতে পারে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, বিমান ছিনতাইয়ের এই চেষ্টার ঘটনার ক্ষেত্রে নিরাপত্তা নিয়ে যে প্রশ্ন উঠছে, সে বিষয়ে সুষ্ঠু তদন্ত করা উচিত। সেই তদন্তের মাধ্যমে দুর্বলতা বা সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে, সে ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।

তারা মনে করেন, যে সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে, সেগুলো দৃশ্যমান করতে হবে বিদেশি এয়ারলাইনস বা বিশ্বের সামনে। আস্থা অর্জনের জন্য এখন কাজ করতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2019 Prothomsheba
Theme Developed BY ThemesBazar.Com