শনিবার, ২৮ মার্চ ২০২০, ১১:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
বাহুবলে হতদরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করলেন ইউএনও বাহুবলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ৩ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে জরিমানা হবিগঞ্জে নিম্ন আয়ের শ্রমিকদের খাদ্য সামগ্রী দিয়ে বাড়িতে পাঠালেন- ডিসি এনি লস্করের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা হতদরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়ে গেল হবিগঞ্জের স্থানীয় পত্রিকার প্রকাশনাও স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস আজ চুনারুঘাটে ২যুবককে কুপিয়ে ক্ষতবিক্ষত ওসমানীতে প্রেরণ আটক ১ বাহুবলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ৩ব্যবসায়ীকে ১৫ হাজার জরিমানা চুনারুঘাটে নতুন এসিল্যান্ড মিলটন চন্দ্র পাল চুনারুঘাটে করোনা সংক্রমণ এড়াতে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জীবাণুনাশক ছিটানোহচ্ছে

কালেঙ্গা স্মার্ট পেট্রোলিং টিম বনজ সম্পদ ও বন্যপ্রাণী রক্ষায় প্রশিক্ষণ

নুর উদ্দিন সুমন, বার্তা সম্পাদক
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৭ মার্চ, ২০২০
  • ৩১ বার পঠিত

নুর উদ্দিন সুমন : হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে রেমা- কালেঙ্গা বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য আধুনিক ব্যবস্থাপনা ও বনজ সম্পদ ধ্বংস ঠেকানোর ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত কল্পে স্মার্ট পেট্রোলিং প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (৭ মার্চ ) সকাল ১১টায় বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী ও আবাসস্থল উন্নয়ন-এর আয়োজনে কালেঙ্গা রেঞ্জ কার্যালয়ে পাঁচদিন ব্যাপী এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। কালেঙ্গা রেঞ্জ কর্মকর্তা মো: আলাউদ্দিন এর সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ )মো: মারুফ হোসেন, উপস্থিত ছিলেন বন্যপ্রাণী অপরাধ বিশেষেজ্ঞ প্রশিক্ষক ড. নাছির উদ্দিন প্রমুখ। প্রশিক্ষণে কালেঙ্গা বনবিটের বিভিন্ন কর্মকর্তা ও সিটিজি ও সিএনসি সদস্যসহ ১৫জন সদস্যএ প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ করেন। রেমা-কালেঙ্গা রেঞ্জের স্মার্ট পেট্রোলিং টিমের লিডার মো: আলাউদ্দিন বলেন, কালেঙ্গা স্মার্ট পেট্রোলিং টিম বনজ সম্পদ ও বন্যপ্রাণী রক্ষায় এ প্রশিক্ষণ। স্মার্ট পেট্রোলিংয়ের মাধ্যমে কালেঙ্গা বনদস্যু তৎপরতা এবং অপরাধ কমে আসবে। একইসঙ্গে রেমা- কালেঙ্গা থেকে বিভিন্ন প্রজাতের মুল্যবান কাঠ ও প্রাণী পাচার রোধ করা সম্ভব হবে। সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) মারুফ হোসেন বলেন, আমাদের নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য আধুনিক আগ্নেয়াস্ত্র দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি গ্রুপ বনের মধ্যে নিরবচ্ছিন্নভাবে প্রশিক্ষণ শেষে টহল দিবে। প্রতি টহল দলে আট থেকে ১০ জন সদস্য থাকে। এছাড়া প্রতিটি টহল গ্রুপের সঙ্গে থাকে গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম (জিপিএস) এবং সাইবার ট্র্যাকার। জিপিএস ও সাইবার ট্র্যাকারের মাধ্যমে টহলকালীন সব কর্মকাণ্ড রেকর্ড করা হয়। পরবর্তীকালে সাইবার ট্র্যাকারের ডাটা ল্যাপটপে আপলোড করা ডাটা ম্যানেজারের মাধ্যমে ডাটা কো-অর্ডিনেটরের কাছে পাঠানো হয়। বন্যপ্রাণী অপরাধ বিশেষেজ্ঞ ড. নাছির উদ্দিন বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন পূরণের পথে বন অধিদপ্তরের অর্জনকে সমৃদ্ধ করেছে নতুন এই টহল পদ্ধতি। টহলের সময় সার্বক্ষণিকভাবে বন্যপ্রাণী পর্যবেক্ষণ এবং বন/বন্যপ্রাণী অপরাধ অনুসন্ধান করা হয়। অপরাধ সংগঠিত হলে সংশ্লিষ্ট আইন/বিধির নির্দেশনা অনুসরণ করা হয়। সব কার্যক্রম স্মার্ট টহলের লগ বই বা সাইবার ট্র্যাকারে রেকর্ড করা হয়। ডাটা ব্যবস্থাপকের কাছে পাঠানো হয়। ডাটা ব্যবস্থাপক সর্বশেষ ভার্সনের স্মার্ট সফটওয়্যারে ডাটা এন্ট্রি ও বিশ্লেষণের মাধ্যমে প্রতিবেদন তৈরি করেন। টহল চলাচলের পথের মানচিত্র বা পায়ে হেঁটে অতিক্রান্ত দূরত্ব, টহল কাভারেজ, গ্রেফতারদের তথ্য, আটকদের মালামালের তথ্য, অপরাধ উদঘাটন বা মালামাল আটকের স্থানের মানচিত্র, অবৈধ কার্যক্রমের তথ্য, অপরাধের হটস্পটের মানচিত্র, বন্যপ্রাণীর পর্যাপ্ততা সংবলিত মানচিত্র ও বন্যপ্রাণী হটস্পটের মানচিত্র প্রতিবেদন প্রস্তুতের ভিত্তিতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ পরবর্তী টহল দলকে দিকনির্দেশনা দেয়। অত্যাধুনিক ডিভাইস ও আধুনিক সমৃদ্ধ স্মার্ট পেট্রোল টিমের কার্যক্রমের ফলে রেঞ্জে বন্যপ্রাণী ও মৎস্যসম্পদ বৃদ্ধি পেয়েছে। সুরক্ষিত হয়েছে বনাঞ্চল। উল্লেখ্য ২০১৫ সাল থেকে প্রথম সুন্দরবনের চারটি রেঞ্জে স্মার্ট টিমের কার্যক্রম শুরু হয়। এর পর থেকে দেশের বিভিন্ন বন বিভাগে প্রশিক্ষণটি চালু হয়। পর্যায়ক্রমে সবকটি বিভাগে এ কার্যক্রম শুরু হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2019 Prothomsheba
Theme Developed BY ThemesBazar.Com