বুধবার, ০১ এপ্রিল ২০২০, ০৬:৫৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
বাহুবলে টিসিবি’র তেল মজুত রাখার দায়ে ব্যবসায়ীকে বিনাশ্রম কারাদণ্ড হবিগঞ্জে বাড়ি বাড়ি গিয়ে চিকিৎসা দিচ্ছেন ডা. জাবের সাধারণ ছুটি বাড়লো ১১ এপ্রিল পর্যন্ত চুনারুঘাটে ২৩ টি চা বাগানে ২ দিনের স্বেচ্ছা ছুটি মাধবপুরে সুবিধাবঞ্চিদের মাঝে সমাজসেবক মানিকের খাদ্যসামগ্রী বিতরণ বাহুবলের ইউএনও ঝুঁকি নিয়ে ছুটছেন এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে রেমা বনবিটের ৫৪হাজার গাছের চারা বাগান ধংস করে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা উপজেলা চেয়ারম্যান কাদির লস্কর খাদ্য সামগ্রী নিয়ে নিম্ন আয়ের মানুষের বাড়ি বাড়ি চুনারুঘাটে ভাতিজীর বাড়িঘর দখল করে পিঠিয়ে ঘর ছাড়া করল চাচারা হাকাজুরা এলাকার আতঙ্কের আরেক নাম মিজান মেম্বার

করোনা ভাইরাস ॥ চীন ফেরত শিক্ষার্থী নিয়ে হবিগঞ্জে স্বাস্থ্য বিভাগের লুকোচুরি

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ৯ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মরণব্যাধি ‘করোনা ভাইরাস’ আক্রান্ত সন্দেহে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন চীন ফেরত মেডিকেল শিক্ষার্থী মো. রায়হান আহমেদের পরিক্ষা নিরিক্ষা শেষ হলেও রিপোর্ট নিয়ে লুকোচুরি করছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।
গতকাল সোমবার সকালে সিভিল সার্জন ডা. একেএম মোস্তাফিজুর রহমান জানিয়েছিলেন রাতে তার পরিক্ষা নিরিক্ষার ফলাফল পাওয়া যাবে। তখনই এ বিষয়ে বিস্তারিত জানাবেন। কিন্তু রাতে রিপোর্ট পাওয়ার কথা জানালেও কি পেয়েছেন তা তিনি জানাতে চাননি। এ নিয়ে সংবাদকর্মীসহ সাধারণ মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হচ্ছে। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা যায়, রায়হান আহমেদ হবিগঞ্জ শহরের শায়েস্তানগর এলাকার বাসিন্দা আব্দুন নূরের ছেলে। তিনি চীনের জিয়াংসু শহরে একটি মেডিকেল কলেজে পড়াশোনা করতেন। ৮ ফেব্রুয়ারী তিনি দেশে আসেন। ১৪ ফেব্রুয়ারী জ¦র, কাশি ও ঘাড় ব্যথা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলেও দু’দফায় হাসপাতাল ছেড়ে পালিয়ে যান তিনি। কিন্তু পুলিশের মাধ্যমে খোঁজে এনে তাকে ১৬ ফেব্রুয়ারী সদর হাসপাতালের ৫ম তলায় আইসোলেশন ওয়ার্ডে তালাবদ্ধ করে রাখা হয়েছে। নির্ধারিত চিকিৎসক-নার্স ব্যতিত অন্য কেউ রোগীর পাশে যাওয়ার বিষয়ে বিধিনিষেধ থাকলেও নিরাপত্তার অভাবে যেকেউ সেখানে যাতায়াত করতে পারছেন।
সিভিল সার্জন ডা. একেএম মোস্তাফিজুর রহমান জানান, তার পরিক্ষা নিরিক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। রিপোর্ট টেলিফোনে জানানো হয়েছে। আপাতত তার যে জ¦র তাতে মনে হচ্ছেনা করোনা ভাইরাস। তবুও তাকে তত্ত্বাবধানে রাখতে হবে। সে বাড়িতে থাকবে। তবে তার খাবার জিনিসপত্র, ঘুমানোর স্থান এবং টয়লেট সবকিছুই আলাদা করে রাখতে হবে। অন্তত তার অবজারভেশন পিরিয়ড পর্যন্ত তার সবকিছু আলাদা থাকবে। তবে পরিক্ষার ফলাফল সম্পর্কে তিনি কিছু বলতে রাজি হননি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2019 Prothomsheba
Theme Developed BY ThemesBazar.Com