শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৫২ পূর্বাহ্ন

নবীগঞ্জ আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর নির্মাণে বাঁধা, ৩ ব্যক্তিকে ভ্রাম্যমান আদালতে ৩ মাস করে কারাদণ্ড

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৭ মে, ২০২১
  • ৫২ বার পঠিত

নবীগঞ্জ উপজেলায় মুজিববর্ষে গৃহহীন পরিবারকে গৃহায়ন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর মানবিক উদ্যোগ গৃহনির্মাণ কাজে বাঁধা দেয়া, শ্রমিকদের মারপিট করা ও লুটপাট করার অভিযোগে ৩ জনকে ৩ মাস করে কারাদ- দিয়েছে উপজেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমান আদালত। বুধবার দুপুরে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহি উদ্দিন ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে এ কারাদ- দেন। দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন- উপজেলার ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের দীঘিরপাড় গ্রামের মৃত তোয়াজ উল্লাহর ছেলে আহমদ আবুল কালাম (৪৪), আলেক মিয়া (৫৫) ও তার ছেলে সাজন আহমদ (২৫)। জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলায় প্রথম পর্যায়ে ১১০টি গৃহের মধ্যে অধিকাংশ ঘরের কাজ প্রায় শেষ। এর মধ্যে ইনাতগঞ্জ বাজার সংলগ্ন দীঘিরপাড় এলাকায় সরকারের খাস খতিয়ানের ৮টি গৃহ নির্মাণ কার্যক্রম শুরু করে উপজেলা প্রশাসন। নির্মাণ কাজ চলাকালে আহমদ আবুল কালাম আজাদ নামে স্থানীয় এক ব্যক্তি ভূমি তার নামে বন্দোবস্ত দাবী করে নির্মাণ কাজে বাঁধা দেন। এরপর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুমাইয়া মুমিন তাকে একাধিকবার নোটিশ করলে সে উপযুক্ত কাগজপত্র দেখাতে ব্যর্থ হয়। চলতি বছরের ২০ জানুয়ারী হবিগঞ্জ সহকারী জজ আদালতে আহমদ আবুল কালাম আজাদ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করলে আদালত নিষেধাজ্ঞার আদেশ দিলে ইনাতগঞ্জে ৮টি ঘরের শেষ পর্যায়ের কাজ আটকা পড়ে। এতে অনিশ্চিত হয়ে পড়ে ওই ৮টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার। ফলে কপাল ভাঙ্গে ভূমিহীন ও গৃহহীন ৮টি পরিবারের। আদালতের আদেশের প্রেক্ষিতে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ ব্যাপারে আদালতে তাঁর জবাব প্রদান করেন। গত মঙ্গলবার ২৫ মে মামলার শুনানী শেষে হবিগঞ্জ সহকারী জজ (নবী) আদালতের বিজ্ঞ বিচারক অভিজিৎ চৌধুরী আবুল কালামের দায়েরী মামলা খারিজ করে দেন। গতকাল বুধবার সকালে বন্ধ থাকা নির্মাণ কাজ পূনরায় শুরু করতে সেখানে যায় শ্রমিকরা। তখন আহমদ আবুল কালাম আজাদ তার লোকজন নিয়ে শ্রমিকদের কাজের নির্মাণ সামগ্রী নামাতে বাঁধা দেয় ও মারমুখী আচরণ করে।

খবর পেয়ে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহি উদ্দিন নবীগঞ্জ থানার একদল পুলিশ সহকারে ঘটনাস্থলে পৌঁছেন। পরে সরকারি কাজে বাঁধা ও শ্রমিকদের আক্রমণের ঘটনায় আহমদ আবুল কালামসহ ৩ জনকে আটক করেন। পরে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহি উদ্দিন ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে দ-বিধি ১৮৬০ এর ১৮৬ ধারায় সরকারি কাজে বাঁধা প্রদান ও আক্রমণের দায়ে প্রত্যেককে ৩ মাস করে বিনাশ্রম কারাদ- প্রদান করেন।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহি উদ্দিন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর প্রকল্পের নির্মিত ঘরের মালামাল চুরি করে আবুল কালাম আজাদ, তার ব্যক্তিগত ঘরের কাজে সরকারি মালামাল ব্যবহার করার বিষয়ে নিয়মিত মামলা করার প্রস্তুতি চলছে। বর্তমানে ঘর নির্মান কাজ চলমান রয়েছে, আশা করছি দ্রুত সময়ের মাঝে ভূমিহীনদের মাঝে ঘর সমঝিয়ে দিতে পারবো।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2019 Prothomsheba
Theme Developed BY ThemesBazar.Com